আজ- শুক্রবার, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে করোনার মহামারীতে হতদরিদ্র ৩০ মা মাতৃত্বকালিন ভাতা না পেয়ে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত

ইন্দুরকানীতে মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তার একঘেয়েমী ও অদক্ষতার জন্য করোনার মহামারীর মধ্যে ও ৩০ মা তাদের একবছরের মাতৃত্বকালিন ভাতা পাচ্ছেন না। ওই কর্মকর্তার অযোগ্যতার জন্য প্রায়ই সরকারের দেয়া অনেক ভাতা ফেরত যায় বলে অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, সরকার মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে প্রতিমাসে একহাজার টাকা করে দুই বছর মাতৃত্বকালীন ভাতা দেয়। কিন্তু এ উপজেলার কমপেক্ষে ৩০ জন মা ২০১৯ সালে একবার ভাতা পেলেও একবছরেও তাদের ভাতা আসে নি। সোমবার উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ৩০ জন মা তাদের মাতৃত্বতালীন ভাতার বই নিয়ে ভাতা দেয়া কর্তৃপক্ষ ইন্দুরকানী সোনালী ব্যাংকে টাকা তুলতে গেলে তাদের হিসাবের ব্ই দেখে বলে আপনাদের একাউন্টে টাকা নাই। কেহর একাউন্টে ৮৫ টাকা, কেহর একাউন্টে ১০০ টাকা আবার কেহর একাউন্টে কোন টাকা নাই। পরে তারা উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্য়ালয় গিয়ে বই দেখিয়ে ব্যাংকে আমাদের একাউন্টে টাকা নাই টাকা দেন। তখন অফিসের অফিস সহকারী আঃ আলিম তাদের কে বলে ব্যাংকের একাউন্টে কেন টাকা নাই বিষয়টি দেখছি।
উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা নুরে জান্নাত ফেরদৌসী কে অফিসে না পেয়ে সাংবাদিকরা ফোন করলে তিনি জানান, ডাটা এন্টিতে সমাস্যার কারণে এদের টাকা আসে নি। ভুক্তভোগী টাকা না পাওয়া মা শিউলি বেগম,সুরমা বেগম,জেসমিন বেগম,শ্যামলি রানীসহ অনেকেই জানান, অফিস সহকারী আঃ আলিম আমাদের কাছ থেকে পাঁচশত করে টাকা চেয়েছে টাকা না দেয়ায় সে আমাদের তথ্য সঠিকভাবে পাঠায় নি। এছাড়া মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বেশি ভাগ সময় অফিসে না এসে বাসায় বসে অফিসের কার্যাক্রম পরিচালনা করেন। অফিসে কোন কাজে গেলে অফিস সহায়ক বলেন আপাকে ডেকে দিচ্ছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মুহাম্মদ আল- মুজাহিদ জানান, মাতৃত্বকালীন ভাতার বরাদ্দের জন্য অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে বরাদ্দ না আসায় তারা টাকা পাচ্ছে না। তবে যাতে দ্রুত বরাদ্দ আসে তার জন্য ব্যবস্থা করা হবে।

বিভাগ: অন্যান্য,জাতীয়,টপ নিউজ,বরিশাল বিভাগ,ব্রেকিং নিউজ,মিডিয়া,সারাদেশ