আজ- রবিবার, ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ ইং

পিরোজপুরে এহ্সান গ্রুপের গ্রাহকদের থেকে হাতিয়ে নেয়া টাকা ফিরে পেতে সংবাদ সম্মেলন

পিরোজপুরে অধিক মুনাফার প্রলোভন দেখিয়ে এহ্সান গ্রুপ পিরোজপুর নামে একটি প্রতিষ্ঠান গ্রাহকদের ৫৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে সংবাদ সমম্মেলন করেছে ভুক্তভুগী গ্রাহকরা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পিরোজপুর প্রেসক্লাবে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন গ্রাহক ও এহ্সান গ্রুপ কয়েকজন কর্মচারী।

লিখিত বক্তব্যে মুফতি শহিদুল ইসলাম বলেন, পিরোজপুর জেলা বিভিন্ন উপজেলা থেকে এহ্সান গ্রুপ পিরোজপুর নামে একটি প্রতিষ্ঠান মাওলানা রফিকুল ইসলাম, মাওলানা ফারুখ হোসেন, মাওলানা আবুল বাশার, মাওলানা হারনি অর রশিদ সহ বেশ কয়েকজন গ্রাহকদের থেকে অধিক মুনাফার প্রলোভন দেখিয়ে ৫৫ লাখ টাকা নেয়। ২০১৯ সালের ২১ মে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মুফতি রাগীব আহসান চেক জালিয়াতির মামলায় কারাবন্দি হয় পরে জামিনে বের হয়ে প্রতিষ্ঠনের নাম পরিবর্তন করেন এবং গ্রাহকদের লভ্যাংশ দেয়া বন্ধ করে দেন।

২০২০ সালে ৭ জুলাই চেয়ারম্যান মুফতি রাগীব আহসান পাওনা টাকার চেক প্রদানের আশ্বাস দিলে সদরের খলিশাখালী এলাকার আব্দুর রব খানের মাদ্রাসায় গেলে তার ভাইয়েরা ও পোষা সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আমাদের উপরে অর্তকিত হামলা চালায়। পরে স্থানীয় চাপে রাগীব আহসান ৩ লাখ টাকার চেক দেয় কিন্ত ২০২১ সালের ৩১ মার্চ চেকের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে রাগীব আহসান কে ফোন দিলে নাম্বার বন্ধ বলে। পরে বাধ্য হয়ে চেক ডিজঅনার করে উকিল নোটিশ পাঠালে রাগীব আহসান উকিল নোটি পেয়ে আমার বড় ভাই মাওলানা নাছির উদ্দিনকে উকিল নোটিশ পাঠায়। নোটিশে বলা হয় তার চেক ২০১৯ সালে চুরি হয়েছে বলে থানায় সাধারণ ডায়েরী করা আছে এবং তার চেক চুরি করা হয়েছে। আমর বড় ভাই মাওলানা নাছির উদ্দিন চেক জালিয়াতির মামলা করে।

এছাড়া অন্যান্য গ্রাহকদেও জমাকৃত ২৮ লাখ টাকা, ৫ লাখ টাকা, ৩ লাখ টাকা, ২ লাখ টাকা ফেরত চাইলে ফেরত চাইলে মুফতি রাগীব আহসান তার ভাইয়েরা ও পোষ্য বাহিনী হামলা করে এবং মামলা করলে প্রান নাশের হুমকি দেয়। এরকম অনেক গ্রাহক টাকা চাইতে এসে নির্যাতিত হয়েছে। এরকম হাজারো গ্রাহক তাদেও হাজার হাজার কোটি টাকা চাইতে এলে তাদেরকে শুধু ঘুরানো হয়। আবার অনেককে হামলা করে প্রান নাশের হুমকি দেয়া হয়। আমাদেও টাকা ফেরতের ব্যাপাওে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবী জানাই।

তবে অভিযোগের বিষয়ে এহসান গ্রুপের কর্তৃপক্ষের থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। বারবার জোগাযোগ করা চেষ্ঠা করা হলেও এহ্সান গ্রুপের রাজিব হাসান কোন কথা বলতে রাজি হননি। এমনকি এহ্সান গ্রুপের ম্যানেজারও এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

বিভাগ: অন্যান্য,জাতীয়,টপ নিউজ,ফিচার,বরিশাল বিভাগ,ব্রেকিং নিউজ,মিডিয়া,সারাদেশ

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.